সংবাদ শিরোনাম
  • ভোর ৫:৫৬ | ২৬শে মে ২০১৯ ইং , ১২ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৯শে রমযান ১৪৪০ হিজরী

খরুলিয়ায় প্রবাসীর জমি দখলে নিতে তৎপর সন্ত্রাসীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
কক্সবাজারের ঝিলংজার খরুলিয়া ঘাটপাড়া এলাকার সৌদি প্রবাসী শফিকুল ইসলামের মালিকানাধীন জমি জবর দখলে নিতে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী আবু বক্কর ওরফে মাস্তাইন্যা বাহিনী তৎপরতা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার ধারবাহিকতায় ১৭ এপ্রিল সকাল ৬টার দিকে ওই মাস্তাইন্যা বাহিনী প্রবাসী শফিকুল ইসলামের জমিতে সশস্ত্র হামলা চালিয়ে প্রবাসীর ভাড়াটিয়া সাথী (৩১)কে গুরুতর জখম করে। বর্তমানে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। এ ঘটনায় ১২জনকে আসামী করে প্রবাসীর ভাই আবদুর রহিম বাদী হয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সৌদি প্রবাসি শফিকুল ইসলাম সরকারকে রেমিটেন্স দিয়ে অর্জিত টাকায় নিজ বাড়ী খরুলিয়াস্থ ঘাটপাড়া এলাকায় কিছু ভিটি জমি ক্রয় করে সকলের জ্ঞাতসারে শান্তিপূর্ণভাবে ভোগ দখল করে আসছিল। তথা তিনি একটি ঘরও ভাড়া দেন এবং কিছুদিন পূর্বে প্রবাসি শফিকুল ইসলাম তার ভাই আবদুর রহিমকে ওই জমি দেখা শুনা করার জন্য কেয়ারটেকার করে সৌদি আরবে চলে যান। এরপর প্রবাসি শফিক দেশে না থাকার সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে খরুলিয়া মাস্টারপাড়া এলাকার কুখ্যাত সন্ত্রাসী ডাকাত আবু বক্কর তার বাহিনীর মোঃ আসাব উদ্দিন, রফিকুল ইসলাম সহ দলবল সশস্ত্র হামলা চালিয়ে প্রবাসীর ক্রয়কৃত জমি দখলের অপচেষ্টা চালিয়ে আসছিল। এর প্রেক্ষিতে আবু বক্কর ও তার বাহিনীর সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে গত ৪এপ্রিল বৃহস্পতিবার কক্সবাজার সদর মডেল থানায় প্রবাসী শফিকুল ইসলামের ভাই আবদুর রহিম লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
কক্সবাজার সদর থানা কর্তৃপক্ষ অভিযোগটি আমলে নিয়ে দুপক্ষের সাথে কথা বলতে গত ১০ এপ্রিল বুধবার বিকাল চারটায় থানায় উভয় পক্ষকে নোটিশ দিয়ে ডাকলেও আবু বক্কর ও তার সহযোগীরা নোটিশের কথায় কর্ণপাত না করে গত ১৭ এপ্রিল সকাল ৬টার দিকে প্রবাসি শফিকুল ইসলাম জমি দখলের অপচেষ্টায় সন্ত্রাসী আবু বক্কর ও তার বাহিনীর মোঃ আসাব উদ্দিন, রফিকুল ইসলাম সহ দলবল সশস্ত্র হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর করে এবং ফলজ ও বনজ গাছ কেটে তান্ডব চালায়। এসময় প্রবাসীর ভাড়াবাসার ভাড়াটিয়া সাথী সন্ত্রাসীদের এহে তান্ডবে বাধা দিলে, সন্ত্রাসী আবু বক্কর ও তার বাহিনী ভাড়াটিয়া সাথীর উপর সশস্ত্র হামলা চালিয়ে গুরুতর জখম করে। পরে সন্ত্রাসী আবু বক্কর ও তার বাহিনীর মোঃ আসাব উদ্দিন, রফিকুল ইসলাম ভাড়াটিয়া জখমী সাথীর কাছ থেকে স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয় এবং তার বসত ঘর থেকে নগদ ৫০হাজার টাকা ও মূল্যবান আসবাবপত্র লুট করে নিয়ে যায়। পরে ভাড়াটিয়া সাথীর শোরচিৎকারে আশে-পাশের লোকজন এগিয়ে এসে মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করান।
থানায় দায়েরী এজাহার সূত্রে জানা যায়, সন্ত্রাসী আবু-বক্কর ওরফে মাস্তাইন্যা বাহিনী দীর্ঘদিন ধরে প্রবাসীর কাছ থেকে চাদাদাবী করে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় ১৭ এপ্রিল আবাস উদ্দিন (২৫) পিতা আবু বক্কর সাং মাষ্টার বাড়ি খরুলিয়া, রফিকুল ইসলাম (৪৫) পিতা মৃত বদিউল আলমমুন্সীরবিল খরুলিয়া আবু বক্কর (৫০) পিতাআবদুল হাসিম, খরুলিয়া, সাজেদা বেগম( ৪২) স্বামী আবু বক্কর সাং মাষ্টারবাড়ি, খরুলিয়া, সাবেকুন্নাহার (২১) পিতা আবু বক্কর সাংঐ সাদিয়া আক্তার (২৩) পিতা আবু বক্কর সাং ঐ লুৎফা আক্তার (২০) পিতা আবু বক্কর সাং ঐ প্রবাসী শফিকুল ইসলামের সরকারকে রেমিটেন্সের মাধ্যমে অর্জিত টাকায় ক্রয়কৃত জমি দখলের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে ভাড়াটিয়ার উপর সশস্ত্র হামলা চালিয়েছে। ফলে প্রবাসীর ভাই আবদুর রহিম বাদী হয়ে কক্সবাজার সদর থানায় মামলা দায়ের করে যার মামলা নং৮৯/১৯।
এদিকে মামলার বাদী শফিকের ছোট ভাই আবদুর রহিম জানান, আমার বড়ভাই দেশে না থাকার সুযোগ নিয়ে তার ক্রয়কৃত জায়গা দখল করার চেষ্টা চালিয়েছে। তিনি আরো বলেন আবু বক্কর ওরফে মাস্তাইন্যা ও তার বাহিনীর লোকজন এলাকার নিরীহ লোকজনকে জিম্মি করে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় আমার ভাইয়ের জমি দখলের চেষ্টা করেছে। তাই ওই সন্ত্রাসীদের প্রতিহত করতে আমরা আইনের আশ্রয় নিয়েছি আশা করি আইন শৃঙ্খলাবাহিনী সঠিক সময়ে সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় আনবেন।
অন্যদিকে স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, সন্ত্রাসী আবু বক্কর ওরফে মাস্তাইন্যার এমনও নজির আছে অস্ত্র সহ সে পুলিশের কাছে ধরা পড়েছিলেন এবং তার বিরুদ্ধে কয়েকটা অস্ত্র মামলা সে সময় ছিল। তার সেই সময়ের সন্ত্রাসী জীবন এখন আবারো চাঙ্গা হয়ে উঠেছে।
এদিকে প্রবাসী শফিকুল ইসলাম মুটোফোনে বলেন, আমি ২০০৪ সাল থেকে স্বপরিবারে সৌদি আরবে অবস্থান করি। মাঝে মাঝে বাংলাদেশে আসি। আমি একজন প্রবাসী আমাকে সমাজে হেয়প্রতিপন্ন করতে সন্ত্রাসীরা বিভিন্ন ধরনের কাজ করে যাচ্ছে। এমনকি আমাকে প্রতিনিয়ত প্রাননাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে ওই আবু বক্কর ওরফে মাস্তাইন্যা। তার মেয়েদের দিয়ে বিভিন্ন ধরনের হয়রানি ও নারী নির্যাতন মামলা করার হুমকী দিচ্ছে। তাই আমার হয়ে আমার ছোট ভাই তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। আশা করি সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পূর্বক এই সমস্যার সমাধান করবে প্রশাসন।
এলাকাবাসি জানান আবু বক্কর ও তার ছেলে মেয়েরা মিলে শফিকের জমি দখল করতে চাচ্ছে অনেক দিন আগে থেকে। প্রশাসন চাইলে সঠিক বিচার করে প্রবাসী শফিকের জমি দখলবাজদের ললুপ দৃষ্টি থেকে বাঁচাতে পারে।
এছাড়া ২০১৭ সালে আবু বক্কর ওরফে মাস্তাইন্যাসহ তার বাহিনীর লোকজন প্রবাসী শফিকের কাছে ক্রয়কৃত জমির ওয়ারিশদার বলে বিভিন্ন সময় মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে।
এদিকে আবু বক্কর ও তার ছেলেদের সাথে কথা বলতে তাদের মুটোফোনে একাধিকবার কথা বলার চেষ্টা করলেও সাংবাদিক পরিচয় দেওয়ার সাথে সাথে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ খাইরুজ্জামান জানান, জমি দখলকারীদের বিরুদ্ধে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে এবং পুলিশ ঘটনার সুষ্ট তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। খুব শিঘ্রই সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় আনা হবে।

মোহাম্মদ ফরিদ,কক্সবাজার থেকে: রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে বৈধ কাগজপত্র বিহীন আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থার হয়ে কাজ করছিলেন এমন ১৬ জন বিদেশি নাগরিককে আটক করে র্যাব-৭। ১৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বিকেলে একটি যৌথ চেকপোস্টে...

ফেসবুকে আমাদের সাথে থাকুন



L0go

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

 
Shares